করোনা, গোলাপগঞ্জে অটোরিকশায় দ্বিগুণ ভাড়া

8

সবুজ সিলেট ডেস্ক

সারা দেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন। এমন সময় বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন। কিন্তু নির্দেশনা উপেক্ষা করে চলাচল করছে সিএনজি, অটোরিকশা। আর এ সুযোগেই সিএনজি অটোরিকশা চালকরা কাবু করছেন সাধারণ মানুষকে। তারা বিভিন্ন কৌশলে বাড়তি ভাড়া আদায় করছেন যাত্রীদের কাছ থেকে। যাত্রীদের অভিযোগ- বিশেষ প্রয়োজনে যারা ঘর থেকে বের হচ্ছেন তাদেরকে রীতিমত কাবু করে ইচ্ছামত ভাড়া আদায় করছেন চালকরা।

শুক্রবার (৮মে) সকালে উপজেলার গোলাপগঞ্জ চৌমুহনীতে দাঁড়িয়ে এসব অভিযোগের সত্যতাও পাওয়া যায়। দেখা যায় গোলাপগঞ্জ থেকে ঢাকাদক্ষিণ ১৫ টাকা ভাড়ার জায়গায় ২৫/৩০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। ভাদেশ্বর ৩৫ টাকা ভাড়া হলেও বর্তমানে জনপ্রতি ৫০ টাকা করে নিচ্ছেন অটোরিকশা চালকরা। আমনিয়া ১০ টাকা করে ভাড়া নির্ধারণ করা থাকলেও সেখানে রাখা হচ্ছে ২০ টাকা, হেতিমগঞ্জ ১০ টাকা ভাড়া হলেও রাখছেন ২০/২৫ টাকা করে।

গোলাপগঞ্জ চৌমুহনীতে কথা হয় যাত্রী ফয়সল আহমদের সাথে। তিনি বলেন, ঢাকাদক্ষিণ থেকে গোলাপগঞ্জ একটু দরকারে এসেছি। ভাড়া দেওয়ার সময় ড্রাইভার বলেন ২৫ টাকা। এ নিয়ে ড্রাইভারের সাথে কিছুটা কথা কাটাকাটি হয়।

হেতিমগঞ্জ থেকে গোলাপগঞ্জ আসা আরেক যাত্রী আব্দুল কাদির। তিনি বলেন, সিএনজি চালকেরা নিয়মের চেয়ে বেশি ভাড়া রাখছেন। তাদের সাথে কথা বলে পারা যায় না। রাস্তায় গাড়ি কম, এই সুযোগ তারা কাজে লাগিয়ে আমাদের কাছ থেকে বেশি ভাড়া নিচ্ছেন।

অটোরিকশা চালক এমরান আহমদ বলেন, আমরা কিছুটা ভাড়া বেশি যাত্রীদের কাছ থেকে চেয়ে নিচ্ছি। তবে যাত্রীরা যে এত টাকা নেই অভিযোগ করলেন সেটা মিথ্যা।

আরেক সিএনজি চালক জামিল আহমদ বলেন, অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে আমরা গন্তব্য স্থলে এই লকডাউনে মধ্যে ও পৌঁছে দেই। এতে কিছু ভাড়া হয়তো বেশি চাই।

ভাড়া বেশি চাইবেন কেন? প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সারাদিন রাস্তায় যাত্রী কম থাকেন। আয়ও কিছুটা কম হয়। তাই যাত্রীদের কাছ থেকে একটু বেশি ভাড়া রাখি আমরা। রাস্তায় পুলিশ মামলা দেয়। মামলার টাকা তো দিতে হবে। তাই ভাড়া বেশি নেই।

এব্যাপারে গোলাপগঞ্জ অটোরিকশা, অটোটেম্পু, শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পুতুল মিয়া জানান, যে দিন থেকে সরকারি ভাবে পরিবহন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে, সেদিন থেকে আমরা সবাইকে বলেছি গাড়ি বন্ধ রাখার জন্য। তারপরও কিছু ড্রাইভার গাড়ি নিয়ে বের হচ্ছেন। ভাড়া বেশি নেওয়ার কয়েকটি অভিযোগ আমরা পেয়েছি।

তিনি বলেন, যারা ভাড়া বেশি নিচ্ছে তাদেরকে আমরা বলেছি ভাড়া নিয়ম মাফিক নেওয়ার জন্য। যাত্রীদেরকে হয়রানি না করার জন্য।