গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে কনেকে প্রেমিকের চুমু , উত্তপ্ত বিয়ের অনুষ্ঠান

71

সবুজ সিলেট ডেস্ক: বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়ায় বিয়ের গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে বরপক্ষের সামনে কনেকে চুমু দেওয়ায় ‘প্রেমিক’ জিহাদ হাওলাদারকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।
২৩ ফেব্রুয়ারি রাতে আগৈলঝাড়া উপজেলার বাগধা ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় স্থানীয়রা জিহাদকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।
এরপরই বর সাইফুদ্দিনের পিতা শহিদ হাওলাদার পুত্রবধূ হিসেবে ওই পিতৃহারা কনেকে মেনে নিবেন না বলে জানিয়ে দেন। এতে করে দরিদ্র পরিবারের এ মেয়েটির বিয়ে ভেঙে যায়।
এরপর ওই রাতেই আগৈলঝাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন কনের মা। সেই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে ২৪ ফেব্রুয়ারি তারিখে কথিত প্রেমিককে জেলে পাঠানো হয়েছে।

বিয়ের আসরেই স্ত্রীকে চুমু দেওয়ায় 'ডিভোর্স'! – আওয়ার নিউজ
মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের বাসিন্দা ওই কিশোরী স্কুলে পড়ার সময় – তার সঙ্গে পাশের গ্রামের জিহাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। জিহাদ উজিরপুর উপজেলার ছত্তার হাওলাদারের ছেলে। দীর্ঘ দিন প্রেমের সম্পর্ক চলমান থাকার পরে জিহাদ অন্যত্র বিয়ে করে। এদিকে স্থানীয় যুবক সাইফুদ্দিনের সঙ্গে ওই কিশোরীর বিয়ে ঠিক হয়। সে অনুযায়ী ২৩ ফেব্রুয়ারি রাতে কনের বাড়িতে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে আসেন বরপক্ষ। অনুষ্ঠান চলাকালে জিহাদ ওই বাড়িতে উপস্থিত হয়ে লোকজনের সামনে কনেকে চুমু দেন। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে স্থানীয়রা ‘প্রেমিক’ জিহাদকে ধরে মারধর করে। এরপর ওই রাতেই আগৈলঝাড়া থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয় তাকে। এমন ঘটনার পরই বরপক্ষ বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে দেয়।
বিয়ে ভেঙে যাওয়া কনের মা বলেন, আমার স্বামী দরিদ্র কৃষক ছিলেন। তাই আমাদের জায়গা-জমি নেই। আমার স্বামীর মৃত্যুর পর ৯ বছর ধরে অন্যেদের সাহায্যে – এক ছেলে ও দুই মেয়েকে নিয়ে চারজনের সংসার খুবই কষ্টে চলছে। এমন দুরাবস্থার মধ্যে মেয়ের বিয়ে ভেঙে যাওয়ায় মহাবিপদে পড়েছি।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আগৈলঝাড়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শফিকুল ইসলাম বলেন, জিহাদকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। কনেকে ওই বরের সঙ্গে বিয়ে দিতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।