শিক্ষকরাই শিক্ষক তৈরী করেন-জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সাখাওয়াত এরশেদ

1

ওসমানীনগর প্রতিনিধি: সিলেট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাখাওয়াত এরশেদ বলেছেন, একমাত্র শিক্ষকরাই শিক্ষক তৈরী করেন। আপনারা যারা শিক্ষকতা করছেন, একদিন আপনারাও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। একজন শিক্ষক ত্রিশ বছর তার চাকরী জীবনে অসংখ্য শিক্ষক তৈরী করেন। শিক্ষক হলেন জাতির আলোক বর্তিকাবাহী এবং মানব জাতির শিক্ষার আলোর রূপকার। সৃষ্টিশীল প্রকাশ ও জ্ঞানের মধ্যে আনন্দ জাগ্রত করা হলো শিক্ষকদের প্রধান শিল্প। প্রতিটি মানুষের জীবনেই শিক্ষকের একটি বড় প্রভাব রয়েছে, যা অনন্তকালেও শেষ হয় না।
তিনি বলেন, প্রশাসনিক বা অন্য বিভাগে সরকারী চাকরী করলে দেশের বিভিন্ন স্থানে বদলি হতে হয়। একমাত্র শিক্ষকরাই বদলী হন তার নিজ উপজেলায়। শিক্ষকদের বদলী শুধু মাত্র তাদের ইচ্ছাতেই হয়ে থাকে। বর্তমান সরকার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নানা ধরণের সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে। এসব সুযোগ কাজে লাগিয়ে শিক্ষিত জাতি উপহার দেয়াই শিক্ষকদের কর্তব্য। তাই নিজ-নিজ কর্মক্ষেত্রে দক্ষতা ও মননশীলতার সাথে কাজ করতে হবে।
বৃহস্পতিবার সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার তাজপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা চলতি দ্বায়িত্ব ফারহানা পারভীনের বদলি জনতি বিদায় ও সহকারী শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় পৃথক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অজিত পাল, প্রচার সম্পাদক মতি লাল দাস গুপ্ত।
বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি ওসমানীনগর উপজেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ চমক আলীর সভাপতিত্বে ও সহ-সভাপতি আয়শা বেগম এবং সাধারণ সম্পাদক মনোজ কুমার দাসের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা শিক্ষা কমিটির সদস্য প্রধান শিক্ষক তরুন চন্দ্র দেব, প্রধান শিক্ষক বাবুল চন্দ্র দাশ, মহেশ কুমার দাশ, আব্দুর রব, সালে আহমদ, সংগঠনের জেলা কমিটির উপদেষ্টা আজাদ মিয়া।
সংগঠনের উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি মলয় কান্তি দেব, সুপ্রিয়া রানী দাশ, অজয় কুমার পাল, সহ-সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল ইসলাম, সুজিত লাল সেন, সুজেতা রানী দত্ত, ঝলক গোস্বামী, সুলেমান আহমদ, মঞ্জু দেবনাথ, সুজিত সুত্রধর, বাবুল রঞ্জন দাশ, সীমা রানী দাশ, জাহাঙ্গীর আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক কবির আহমদ, মোহন লাল দেব, ফারহানুজ্জামান চৌধুরী, দিবস দাশ, সীমা আক্তার, অর্থ সম্পাদক শেখর চন্দ্র দেব, ভাষ্কর দেবনাথ।
উপস্থিত ছিলেন, শিক্ষক স্বপন আচার্র্য্য, কিশোর ভট্টাচার্য্য, মওদুদ আহমদ, মাজহারুল ইসলাম, অনুপম দেবনাথ, খলিলুর রহমান, আবু ইউসুফ, হেপি রানী দাশ, শিরিয়া বেগম, আবুল বাশার সুমন, সুয়েব আহমদ, নারায়ন দেবনাথ, কলি দেব, রুবেল আহমদ, কামাল আল দ্বিন, সুশিল চন্দ্র দেবনাথ, কান্তা ভট্টাচার্য্য, সুমিতা সরকার, ফরিদা বেগম, পম্পা দেব, মিথুন গুপ্ত প্রমুখ।