তীব্র তাপপ্রবাহে পর্যটকের প্রভাব পড়েছে পর্যটনকেন্দ্র জাফলংয়ে

2

শাহ আলম,গোয়াইনঘাট (সিলেট) প্রতিনিধি: চলছে তীব্র তাপ প্রবাহ। এর প্রভাব পড়েছে সিলেটের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র জাফলংয়ে। যেখানে প্রতিদিনই হাজারো পর্যটকের সমাগম হয়। সেখানে প্রচণ্ড তাপপ্রবাহের কারণে হাতেগোনা কিছু সংখ্যক পর্যটকের উপস্থিতি দেখা গেছে। কোলাহল ও মুখরতা নেই বললেই চলে।

স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায়ীরা বলছেন, অসহনীয় তাপ প্রবাহের কারণে ভরা মৌসুমেও পর্যটক কমেছে। অন্য বছর এমন দিনে পর্যটকের সরব উপস্থিতিতে কর্মচাঞ্চল্য আসত কেন্দ্রগুলোতে।
এবার ছুটির দিন কিছু পর্যটকের দেখা মিললেও পরদিন থেকেই পর্যটকের উপস্থিতি একেবারেই নেই বললেই চলে। আর পর্যটক কমায় অর্থনৈতিক সংকটে পড়ছেন পর্যটক নির্ভর প্রায় ৮-১০টি পেশায় জড়িত মানুষ।

স্থানীয়রা বলছেন, সিলেটের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র জাফলং। সারা বছরই এখানে হাজারো পর্যটকের সমাগম হয়। ছুটির দিন কিংবা বিশেষ দিন ছাড়াও এখানে লোকে লোকারণ্য থাকে প্রতিটি কেন্দ্র। বর্ষাকালে জাফলংয়ের সৌন্দর্য মেলে ধরে। ঝরনা ফিরে পায় তার রূপ-যৌবন।

গেল পবিত্র ঈদুল ফিতর পরবর্তী সপ্তাহজুড়ে জাফলংয়ের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ছিল পর্যটকের উপচে পড়া ভিড়। কিন্তু দেশে চলমান তাপ প্রবাহের কারণে ছুটির দিন ছাড়া প্রত্যাশিত পর্যটকের দেখা মেলে না।
এদিকে দেশের অন্যান্য জেলা থেকে সিলেটে গরম একটু কম। তাই যারাই বেড়াতে আসছেন তারা আনন্দে সময় পার করছেন।

ব্যবসায়ী আফাজ উদ্দিন বলেন, ‘সারা দেশেই তীব্র গরমের কারণে পর্যটক কমেছে। তবে সিলেট গরম কম থাকলেও পর্যটকের সংখ্যা কমে গেছে। এতে আমাদের ব্যবসায় মন্দা দেখা দিয়েছে। বেচা-কেনা নেই বললেই চলে।’

বৃহত্তর জাফলং  পর্যটন কেন্দ্র ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ বলেন, ‘সারা দেশেই তাপ প্রবাহ বাড়ছে। এতে আমাদের পর্যটনকেন্দ্রে আগের থেকে পর্যটকের সংখ্যা কমছে। এতে ব্যবসায়ীরা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।’

জাফলং টুরিস্ট পুলিশের ইনচার্জ মো. রতন শেখ বলেন, পর্যটক প্রতিদিনই ভিড় করছেন। তবে দেশে চলমান তাপপ্রবাহের কারণে কিছুটা প্রভাব পড়ছে। জাফলংয়ের মায়াবী ঝরনা দেখতে অনেকেই আসছেন। আগত পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তা দিতে টুরিস্ট পুলিশ চারটি পয়েন্ট কার্যক্রম পরিচালনা করছে’।